"> সিরাজগঞ্জে কমছে যমুনার পানি, কমেনি বানভাসিদের দুর্ভোগ সিরাজগঞ্জে কমছে যমুনার পানি, কমেনি বানভাসিদের দুর্ভোগ – Poilbarta 24 tv
  1. admin@poilbarta24tv.com : admin :
শুক্রবার, ০৭ অক্টোবর ২০২২, ০৫:৫৪ পূর্বাহ্ন

সিরাজগঞ্জে কমছে যমুনার পানি, কমেনি বানভাসিদের দুর্ভোগ

Reporter Name
  • Update Time : বৃহস্পতিবার, ২৩ জুন, ২০২২
  • ৬৩ Time View

নিজস্ব প্রতিনিধিঃ   যমুনা নদীর পানি কমতে শুরু করায় সিরাজগঞ্জে বন্যা পরিস্থিতির কিছুটা উন্নতি হয়েছে। গত ২৪ ঘণ্টায় নদীর পানি ৮ সেন্টিমিটার কমে শহর রক্ষা বাঁধ হার্ডপয়েন্ট এলাকায় বিপৎসীমার ৪৫ সেন্টিমিটার ও কাজিপুর পয়েন্টে ৬ সেন্টিমিটার কমে ৫৬ সেন্টিমিটার ওপর দিয়ে বইছে। তবে অভ্যন্তরীণ নদ-নদীর পানি এখনো বাড়ছে।এছাড়া পানির স্রোতে জেলার চৌহালী ও শাহজাদপুর উপজেলার কয়েকটি স্থানে ভাঙন অব্যাহত রয়েছে। পানি উন্নয়ন বোর্ড ভাঙনরোধে কাজ করছে।

বন্যায় জেলার কাজিপুর, সিরাজগঞ্জ সদর, বেলকুচি, শাহজাদপুর ও চৌহালী- এ ৫টি উপজেলার ৩৮টি ইউনিয়নের প্রায় সাড়ে ৮ হাজার পরিবারের ৪১ হাজার মানুষ পানিবন্দি হয়ে পড়েছেন। এসব এলাকায় ১৮৪টি আশ্রয়কেন্দ্র প্রস্তুত রাখা হলেও মানুষ এখনো সেখানে ওঠেনি। কিছু মানুষ উঁচু স্থান ও বাঁধের ওপর আশ্রয় নিয়েছেন। পানি ওঠায় বেশ কিছু শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান বন্ধ রয়েছে। দুর্গত এলাকায় শুকনো খাবার ও বিশুদ্ধ পানির সংকট এবং স্যানিটেশনসহ নানা সমস্যা দেখা দিচ্ছে। সদরের বিয়ারা এলাকায় মাটির রাস্তা ভেঙে যাওয়ায় দুই শতাধিক পরিবারের মানুষ নৌকায় চলাচল করছে।

এছাড়াও বন্যা আক্রান্ত ৫টি উপজেলার নিম্নাঞ্চলের ৬ হাজার ৯২ হেক্টর জমির আউশ ধান, পাট, বাদাম, তিল, কাউন, ধইঞ্চাসহ উঠতি ফসল পানিতে তলিয়ে গেছে।

সিরাজগঞ্জ পানি উন্নয়ন বোর্ডের পানি পরিমাপক হাসানুর রহমান জানান, গত ২৪ ঘণ্টায় যমুনার পানি ৮ সেন্টিমিটার কমে শহর রক্ষা বাঁধ হার্ডপয়েন্ট এলাকায় ৪৫ সেন্টিমিটার ওপর দিয়ে বইছে। এছাড়াও কাজিপুর পয়েন্টে ৬ সেন্টিমিটার কমে ৫৬ সেন্টিমিটার প্রবাহিত হচ্ছে।

সিরাজগঞ্জ জেলা ত্রাণ ও পুর্নবাসন কর্মকর্তা মো. আকতারুজ্জামান জানান, আমরা ইতোমধ্যেই ত্রাণ ও শুকনো খাবার বিতরণ কার্যক্রম শুরু করেছি। জেলার চৌহালী উপজেলায় ত্রাণ বিতরণ করা শুরু হয়েছে। এখন খুব দ্রুতই সবজায়গাতেই বিতরণ করা হবে। তিনি বলেন, জেলার কাজিপুর, সদর, বেলকুচি, চৌহালী ও শাহজাদপুর এই ৫ উপজেলায় ইতিমধ্যেই ১৪০ মেট্রিকটন চাল বরাদ্ধ দিয়েছি। ইতিমধ্যেই চৌহালীর জন্য ৩ হাজার প্যাকেট শুকনো খাবার পাঠানো হয়েছে। এছাড়াও শিশু খাদ্যসহ অন্যান্য শুকনো খাবার মজুদ আছে।

তিনি আরও জানান, বন্যার্তদের জন্য ইতিমধ্যেই ৯১১ মেট্রিক টন চাল, নগদ ২০ লাখ টাকা এবং ৪ হাজার প্যাকেট শুকনো খাবার বরাদ্দ পাওয়া গেছে। এর মধ্যে থেকে ১৪০ মেট্রিক টন চাল, ৬ লাখ টাকা ও ৩ হাজার প্যাকেট শুকনো খাবার বিতরণ শুরু করা হয়েছে। বাকিগুলো এখনও মজুদ আছে। পর্যায়ক্রমে এগুলোও বিতরণ করা হবে। প্রয়োজনে আরও চাহিদা দেয়া হবে বলেও জানান এই কর্মকর্তা।

Please Share This Post in Your Social Media

Leave a Reply

Your email address will not be published.

More News Of This Category
© All rights reserved © 2022 পৈল বার্তা টিভি
Design & Development Freelancer Zone